সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়েই কাজ করছেন কলকাতার পুলিশ কর্মীরা

Rightsidepost রাজ্য

আজ শুক্রবারের প্রতিবেদন -লক ডাউনের সময় সংক্রমণ ছড়ানো ঠেকাতে কলকাতা শহরের ঘোষিত কনটেনমেন্ট জোনে ব‍্যারিকেড করে রেখেছে পুলিশ।পাহারায় যাঁরা আছেন তাঁদের অনেকেই সিভিক ভলান্টিয়ার। মুখে মাস্ক এবং হাতে গ্লাভস নিয়ে কর্তব‍্য পালন করছেন তাঁরা। অনেকের কাছেই একজোড়ার বেশি গ্লাভস নেই। কখনও কখনও তাঁরা কাজ চালান পুরোন পলিব‍্যাগ হাতে জড়িয়ে। সংক্রমণজনিত সমস‍্যা রয়েছে এমন এলাকায় এই সামান্য সুরক্ষা নিয়ে আট ঘন্টা রোদে দাঁড়িয়ে বা বসে পাহারা দেওয়া কতটা স্বাস্থ‍্যসম্মত তা নিয়ে প্রশ্ন না তুলে বরং এটুকুই মনে করিয়ে দেওয়া যাক সংক্রমণ ঘটেছে বা করোনা সংক্রামিত রোগীর বাড়ি যে এলাকায় সেখানে কলকাতা পুরসভার কর্মীরা জঞ্জাল সাফাই করতে ঢোকেন পি পি ই পরে। যে কোনস্তরের পুলিশ কর্মীরা কর্তব‍্য পালনের সময় এর তুলনায় নিতান্তই সামান্য প্রতিরোধক সরঞ্জাম পান। এই প্রতিবেদন লেখার সময় পর্যন্ত বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্মী কোভিড ১৯ সংক্রমণজনিত চিকিৎসা র জন‍্য হাসপাতালে ভর্তি। অসমর্থিত সূত্রে জানা গেছে কলকাতা পুলিশের সদর দপ্তরেও পর্যাপ্ত সংখ্যক পি পি ই নেই। পি পি ই পাওয়ার সুযোগের ক্ষেত্রে নাকি পুলিশ কর্মীরা দুয়োরানী। পুলিশ বিভাগের ডাক্তারেরাই আগে সুরক্ষা সরঞ্জাম পান। জনগণের নিরাপত্তা নিয়ে পুলিশের দায়িত্ব পালনে ফাঁকফোকর থাকলে অবশ্যই তা নিয়ে সমালোচনার অবকাশ অবশ্যই আছে।কিন্তু তাঁরা সংক্রমণ ঠেকাবার জন‍্য ন‍্যূনতম সুরক্ষা সরঞ্জাম না পেলে তাঁদের ঝুঁকি যেমন বাড়বে জনগণের পক্ষেও তা নিরাপদ থাকবেনা।

Share this: